19 C
Kolkata
Saturday, December 3, 2022

রবি স্মরণে বিষয়ে ভিডিও প্রধানমন্ত্রীর

Must read

ওয়েব নিউজ ডেস্ক : একুশের বঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে প্রধানমন্ত্রীর মুখে বারবার ফিরে এসেছিল বিশ্বকবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাম। একুশের মহারণে ‘সোনার বাংলা’র স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়েছে। একবছর বাদে পঁচিশে বৈশাখ ফের রবি-শরণ মোদীর। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নিয়ে একটি ভিডিয়ো টুইট করে এদিন শ্রদ্ধা জানিয়েছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর যে প্রেরণা, সেই বার্তা দিয়েছেন যেমন, তেমনই দেশের আত্মনির্ভরতার প্রসঙ্গও উত্থাপন করেছেন নমো।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নিয়ে একটি ভিডিয়ো টুইট করে এদিন শ্রদ্ধা জানিয়েছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী । মোদী বলেছেন, ”গুরুদেব আমাদের স্বদেশি সমাজের সংকল্প দিয়েছেন। গ্রাম-কৃষি ক্ষেত্রে আত্মনির্ভর দেখতে চেয়েছেন। বাণিজ্য, সাহিত্য ক্ষেত্রে আত্মনির্ভর দেখতে চেয়েছেন। আত্মনির্ভরতার লক্ষ্য পূরণের জন্য আত্মশক্তির কথা বলেছেন…।” প্রধানমন্ত্রী লিখেছেন, ”দেশের জন্য ওঁর লক্ষ্য পূরণে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ।”

কবিগুরুকে নিয়ে ভিডিয়ো টুইট করে মোদী বলেছেন, ”গুরুদেব আমাদের স্বদেশি সমাজের সংকল্প দিয়েছেন। গ্রাম-কৃষি ক্ষেত্রে আত্মনির্ভর দেখতে চেয়েছেন। বাণিজ্য, সাহিত্য ক্ষেত্রে আত্মনির্ভর দেখতে চেয়েছেন। আত্মনির্ভরতার লক্ষ্য পূরণের জন্য আত্মশক্তির কথা বলেছেন…।” টুইট বার্তায় শেষাংশে প্রধানমন্ত্রী লিখেছেন, ”দেশের জন্য ওঁর লক্ষ্য পূরণে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ।”

উল্লেখ্য,এর আগেও একাধিক বার রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সম্পর্কে বলতে গিয়ে আত্মনির্ভরতার কথা বলেছিলেন। ২০২০ সালে বিশ্বভারতীর শতবর্ষ উদযাপনে মোদী বলেছিলেন, ”বিশ্বভারতী আরাধ্য জায়গা। এই প্রতিষ্ঠান দেশকে শক্তি জুগিয়েছে। বিশ্বভারতী মানেই গুরুদেবের চিন্তন, দর্শন জুড়ে রয়েছে। প্রকৃতির সঙ্গে মিলে অধ্যয়ন ও জীবনচর্যার উদাহরণ এই প্রতিষ্ঠান।”

বিশ্বভারতীর ওই অনুষ্ঠানে কবিগুরুর গুজরাট যোগ প্রসঙ্গে মোদী বলেছিলেন, ”গুরুদেবের বড় ভাই সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর আইসিএসে ছিলেন যখন, ওঁর নিয়োগ আহমেদাবাদে হয়েছিল কবিগুরু প্রায়শই গুজরাটে যেতেন। ওখানে দীর্ঘ সময় কাটিয়েছেন…ক্ষুধিত পাষাণের একটা অংশ ওখানে লিখেছিলেন…সত্যেন্দ্রনাথের স্ত্রী জ্ঞানদানন্দিনী আহমেদাবাদে যখন ছিলেন, তখন তিনি দেখেছিলেন, স্থানীয় মহিলারা শাড়ির আঁচল ডানদিকে রাখতেন। ফলে কাজ করতে সমস্যা হত মহিলাদের। বাঁ দিকে শাড়ির আঁচলের প্রচলন উনিই চালু করেন।” মোদীর এই বক্তব্য ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। সঠিক তথ্য তুলে ধরেননি প্রধানমন্ত্রী, এমন দাবি করেছিল তৃণমূল।

গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ সভায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি গানের লাইন দিয়ে বক্তৃতা শেষ করেছিলেন। কবিগুরুকে উদ্ধৃত করে তিনি বলেছিলেন, ”শুভ কর্মপথে ধর নির্ভয় গান। সব দুর্বল সংশয় হোক অবসান।” সে বার তিনি আরও বলেছিলেন, ”আমাদের কর্মপথে যদি আমরা নির্ভীক হয়ে লড়াই করতে পারি, তাহলে সমস্ত দুর্বলতা আর সংশয় দূর হবে। গুরুদেবের এই লাইনগুলি বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে খুবই প্রাসঙ্গিক।”

অন্যদিকে, এদিন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ”আমার খুব দুঃখ হয়। আজও কবিগুরুর নোবেল পুরস্কারটা উদ্ধার হল না। দীর্ঘদিন হয়ে গিয়েছে। এটা বামফ্রন্ট আমলের ঘটনা। তদন্ত করতে দেওয়া হয়েছিল CBI-কে। CBI তদন্ত সম্ভবত বন্ধ করে দিয়েছে। এত বড় একটা ঘটনা। এটা আমাদের অসম্মান। সমস্ত তথ্যপ্রমাণ আদৌ আছে কি না জানি না। বড় গায়ে লাগে। সর্বপ্রথম আমরা পেলাম আর আমাদের থেকে কেউ নিয়ে নিল? হারিয়ে দিল?”

- Advertisement -spot_img

More articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

Latest article