19 C
Kolkata
Saturday, December 3, 2022

সাহিত্যে কে নোবেল পাবেন, তা নিয়ে প্রতিবছরই উৎসাহ থাকে। আবদুল রাজাক গার্ণা।

Must read

সাহিত্যে কে নোবেল পাবেন, তা নিয়ে প্রতিবছরই উৎসাহ থাকে। আবদুল রাজাক গার্ণা। তানজানিয়ার এই কৃষ্ণাঙ্গ ঔপন্যাসিক ২০২১ সালের সাহিত্যে নোবেল জিতলেন। বৃহস্পতিবার সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে নোবেল কমিটি গার্নার নাম ঘোষণা করে। ঔপনিবেশিকতার তীব্র সমালোচনা ও শরণার্থীদের নিয়ে লিখেই ২০২১ সালে সাহিত্যে নোবেল জিতলেন তাঞ্জানিয়ার সাহিত্যিক। 

গার্নার নিজের জীবন ও উপন্যাসের চেয়ে কম কিছু নয়। তিনি ১৯৬০ সালের শেষ দিকে শরণার্থী হিসেবে যুক্তরাজ্যে আশ্রয় নেন। তিনি কেন্ট ইউনিভার্সিটির ইংরেজী সাহিত্য এবং পোস্ট কলোনিয়াল স্টাডিজের অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। 

৬০ এর দশকে আরবিক বংশোদ্ভুত নাগরিকদের ওপর যখন স্বৈরাচারী শাসক আবেইদ কারুমে নির্বিচার হত্যালীলা চালাচ্ছেন তখন নিজের দেশ ছেড়ে ব্রিটেনে পালিয়ে যান গার্না। ফিরতে ফিরতে ১৯৮৪ সাল । মৃত্যুপথযাত্রী বাবাকে কয়েকদিনের জন্য দেখতে পেরেছিলেন গারনা।

নিজে উদ্বাস্তু, শরণার্থী। তাই তাঁর লেখায় বারবার উঠে এসেছে দেশ হারানোর যন্ত্রণা। ঔপনিবেশিক প্রভাব যে দেশগুলো কাটিয়ে উঠতে পারেনি সেটাও নিজের কলমে তুলে ধরেছেন গার্না। সুইডিশ একদেমি বলছে এরপর তাঁকে নোবেল না দিয়ে উপায় ছিল না। তার সাহিত্যে শরণার্থীদের দুর্দশা এবং আফ্রিকান অঞ্চলের রাজনীতি স্থান পেয়েছে। মোট ১০টি উপন্যাস ও একটি ছোট গল্পের সংকলন রয়েছে তাঁর। সম্প্রতি তিনি অবসর নিয়েছেন। ১৯৯৪ সালে প্রকাশিত প্যারাডাইস উপন্যাসের জন্য সাহিত্যের বুকার পুরস্কারও জিতেছিলেন আবদুল রাজাক গুরনাহ।

কিন্তু গার্নার কি বলছেন? ” আজকে জীবনের সবচেয়ে স্মরণীয় দিন। জানিনা আমি এই খেতাবের যোগ্য কিনা কিন্তু সব হারানো মানুষের যন্ত্রণা আমার মধ্য দিয়ে এভাবেই প্রকাশ পেতে থাকবে।” বলছেন তিনি।সিরিয়া , আফগানিস্তানের সমস্যা তথা শরণার্থী নিয়ে পশ্চিমী বিশ্বের দ্বিধাদ্বন্দ্বের মধ্যে গার্নার এই নোবেল এই ব্যাপক বার্তা বহন করছে কোনো সন্দেহ নেই।তাঁর লেখা সবচেয়ে বিখ্যাত উপন্যাস বোধ হয় প্যারাডাইস।বুকার বাছাই তালিকায় আসা এই লেখার জন্যই গারনা প্রথম খবরের শিরোনামে আসেন। আরেকটি অসাধারণ লেখা desertion। আপাতত কেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত গারনা আগামী ১০ ই ডিসেম্বর পুরস্কার নিতে স্টকহোমে যাবেন যে পুরস্কারের বর্তমান অর্থমূল্য ১০ মিলিয়ন সুইডিশ ক্রোন।বলাই বাহুল্য , ডিনামাইটের আবিষ্কারক স্যার আলফ্রেড নোবেল তাঁর আবিষ্কৃত ডিনামাইটের সম্ভাব্য ধ্বংসলীলা অনুমান করতে পেরে অনুশোচনায় দগ্ধ হয়ে এই পুরস্কার চালু করেন।প্রতি বছর সাহিত্য, রসায়ন , পদার্থবিদ্যা, রসায়ন , চিকিৎসা, শান্তি ও অর্থনীতি এই কয়েকটি ক্ষেত্রে অসামান্য কাজের জন্য নোবেল দেওয়া হয়।

এর আগে ২০২০ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কবি লুইস গ্লুক। সরল ও সৌন্দর্যময় সুস্পষ্ট কাব্যিক কণ্ঠস্বরের জন্য তাকে এই পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। ১৯৯৩ সালে টনি মরিসনের পর প্রথম আমেরিকান নারী হিসেবে এই পুরস্কার জিতেন গ্লুক। কবি লুইস গ্লুক ১৯৪৩ সালে নিউইয়র্কে জন্মগ্রহণ করলেও বেড়ে উঠেছেন ক্যামব্রিজ ও ম্যাসাচুসেটসে।

- Advertisement -spot_img

More articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

Latest article